দিনরাত প্রতিনিধি, সিডনি : বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সিডনির লাকেম্বাস্থ কহিনুর ফাংশন সেন্টারে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বাংলাদেশ থেকে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন জাতীয়তাবাদী যুবদল কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি সাইফুল ইসলাম নিরব।

তিনি বলেন, অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে দেশটাকে লুটপাটের দেশে রুপান্তর করেছেন। আর ঢাকা শহরকে এখন ক্যাসিনো শহরে পরিণত করেছেন। বেগম খালেদা জিয়াকে অবৈধভাবে ২ কোটি টাকার মিথ্যা মামলা দিয়ে বন্দি করে রেখেছেন।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদল অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি ইয়াসির আরাফাত সবুজের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার প্রধান উপদেষ্ঠা ও সাবেক আহবায়ক মো. দেলোয়ার হোসেন।

প্রধান বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন- বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি মো. মোসলেহ উদ্দিন হাওলাদার আরিফ। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন- বিএনপি অস্ট্রেলিয়ার সাবেক সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী স্বপন, সিনিয়র সহ সভাপতি কুদরত উল্লাহ লিটন, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. নাসিম উদ্দিন আহম্মেদ, সহ সভাপতি মোবারক হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইন্জিনিয়ার কামরুল ইসলাম শামীম, স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি এ এনএম মাসুম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সামাদ শিবলু।

যুবদল অস্ট্রেলিয়ার সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জাকির হোসেন রাজুর পরিচালনায় বিশেষ বক্তা হিসাবে বক্তব্য রাখেন- যুবদলের সাধারণ সম্পাদক খাইরুল কবির পিন্টু, স্বেচ্ছাসেবকদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জুমান হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাবেল হক জাবেদ, নিউসাউথওয়েলস বিএনপির সভাপতি অনুপ আন্তনী গোমেজ, এস এম রানা সুমন, অসীত গোমেজ, দিলোয়ার হোসেন, এস এম খালেদ, মো. ফরিদ আহম্মেদ, শফিকুল ইসলাম, গোলাম রাব্বানী শুভ, আব্দুল করিম, গোলাম রাব্বানী, আরিফুল ইসলাম, পংকজ বিশ্বাস, মাসুম বিল্লাহ, শামছুল আরেফিন রিয়াদ, মতিয়ার রহমান, হাবিব মিয়া, শাহ হাছিবুল কবির নাঈম, ওয়ারিস মাহমোদ প্রমূখ।

মো. মোসলেহ উদ্দিন হাওলাদার আরিফ বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন যখন কারাগারে যান তখন সবাই দেখেছেন তিনি অসুস্থ অবস্থায় কারাগারে গিয়েছেন। তিনি বিছানা থেকে উঠতে পারেন না, নিজে খাবার খেতে পারেন না, হাঁটতে পারেন না। তিনি যে হাসপাতালে রয়েছেন সেখানে তার প্রপার চিকিৎসা সম্ভব নয়। আমি বারবার বলেছি, তার অধিকার তিনি জামিন পেতে পারেন। কিন্তু সরকার ইচ্ছাকৃতভাবে তার জামিন আটকে রেখেছে এবং তার জামিন যেন না হয় সে জন্য তারা ব্যবস্থা নিয়েছে।

মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, এখনও দুঃশাসনের হুমকি প্রতিদিনই তার ওপর বর্ষিত হচ্ছে। তারেক রহমানকে চক্রান্তজালে আটকাতে চলছে নিরন্তর বহুমুখী ষড়যন্ত্র। ক্ষমতা জবরদখলকারীরা অবিরাম কটূক্তি ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়ে গেলেও তারেক রহমানকে তার বিশ্বাস ও আদর্শ থেকে বিন্দুমাত্র টলাতে পারেনি। আওয়ামী লীগ সরকারের নির্যাতন, নিপীড়ন, দুঃশাসনে দেশ আজ ধ্বংসের সর্বশেষ প্রান্তে উপনীত হয়েছে। দেশের সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতা আজ হুমকির মুখে। বহুদলীয় গণতন্ত্রের শেষ চিহ্নটুকু মুছে ফেলে আবারও একদলীয় শাসনের নিষ্পেষণে সারা জাতিকে বন্দি করা হয়েছে। এই দুঃসময়ে তারেক রহমানের নিঃশংক মনোবল ও দৃঢ় নেতৃত্ব দুঃশাসনের বিরুদ্ধে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে উজ্জীবিত করছে।

ইয়াসির আরাফাত সবুজ বলেন, ভোটার বিহীন মিডনাইট আওয়ামী লীগ সরকার অবৈধভাবে আদালতকে ব্যবহার করে বেগম খালেদা জিয়াকে আটকিয়ে রেখেছে তাই অবিলম্বে উনার মুক্তি না দিলে প্রবাস থেকে বৃহত্তর আন্দোলনে মাধ্যমে সরকারকে পতনের মাধ্যমে উনাকে মুক্ত করার সংকল্প করেন।