দিনরাত সেন্ট্রাল ডেস্ক : কয়েকদিন দম দিয়ে আবারও বাড়তে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম। গত সপ্তাহে কিছুটা নিম্নমুখী থাকলেও আবার ঊর্ধ্বমুখী পেঁয়াজের বাজার।

বুধবার (১৬ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। দশ দিন আগেও যে পেঁয়াজ ৮০ টাকা কেজি ছিল সেই পেঁয়াজই বিক্রি হচ্ছে ৮২ থেকে ৮৫ টাকা কেজি। আরও দাম বাড়ার আশঙ্কা করছেন বিক্রেতারা।

মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটের আড়তদাররা জানান- পেঁয়াজের দাম গড় দেড় সপ্তাহে যা ছিল তার থেকে কিছুটা বেড়েছে। আগামী সপ্তাহে আরও বাড়তে পারে বলে তাদের ধারণা। হঠাৎ আবার বৃদ্ধির কারণ কি জানতে চাইলে শ্যামবাজারের বড় আড়তদারদেরকে দোষারোপ করেন অনেকে। কেননা রাজধানীর পেঁয়াজের বড় চালান আসে শ্যামবাজার, বাবুবাজার এলাকা থেকে। আর কিছু আসে কাওরান বাজার এলাকা থেকে। পরে এ বাজার থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার বড় বড় পাইকারি বাজারে যায় পেঁয়াজ, রসুন, আদা।

কৃষি মার্কেটের কয়েক গজ দূরেই রয়েছে শত শত খুচরা বিক্রেতা। পেঁয়াজ-আদা-রসুনের দোকানদার মো. রফিক জানান, পেঁয়াজের দাম গত সপ্তাহের তুলনায় কেজিতে ২ থেকে ৩ টাকা বেড়েছে। তার দোকানে দেশি পেঁয়াজ বাছাই করা ১১০ টাকা কেজি, আর বাছাই ছাড়া ১০০ টাকা কেজি।

পাশেই আর এক দোকানদার মো. সুজন প্রতি কেজি বার্মিজ (বাছাইকৃত) পেঁয়াজ বিক্রি করছে ৯০ টাকা দরে, আর বার্মিজ নরমাল ৮০ টাকা কেজি দরে। ভারতীয় পেঁয়াজ ৮৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

কৃষি মার্কেটের নিউ মুন্সিগঞ্জ বাণিজ্যালয় আড়তে দেখা গেছে পেঁয়াজের বস্তা লোড-আনলোড চলছে। দাম জানতে চাইলে ম্যানেজার সুজন বলেন, দেশি হাইব্রিড প্রতি বস্তা ৮৫ টাকা, দেশি পেঁয়াজ ৮৮ টাকা এবং ভারতের পেঁয়াজ ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজার ভেদে পেঁয়াজের দাম ২ থেকে ৫ টাকা বেড়ে যাচ্ছে। আড়তদারদের এমন ব্লেইম গেইম খেলায় পেঁয়াজের ঝাঁজে নাকানি চুবানি খাচ্ছে সাধারণ ভোক্তারা। মোহাম্মদপুর ঘুরে কোথাও সরকারি টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রির গাড়ি দেখা যায়নি। এমনকি কোনো মনিটরিং টিমও চোখে পড়েনি। অনেকে বলেছেন ভারত থেকে পেঁয়াজ না আসা পর্যন্ত এভাবেই দাম বাড়তে থাকবে। আর নতুন পেঁয়াজ আসতে আসতে আরো কমপক্ষে দুই মাস অপেক্ষা করতে হবে। পেঁয়াজ তো প্রতিদিনের রান্নার উপাদান, কাজেই দাম কমার সম্ভাবনা আপাতত কমই দেখছেন বিক্রেতারা।