দিনরাত আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বেকারত্ব, দুর্নীতি ও প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে টানা পাঁচ দিন ধরে ইরাকে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ চলমান। এখনো পর্যন্ত এ বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর ছয় সদস্যসহ মোট ৭২ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে কমপক্ষে দুই হাজার বিক্ষোভকারী।

শনিবার (৫ অক্টোবর) দেশটির নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের বরাতে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম এ তথ্য জানায়।

সংবাদের প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিক্ষোভের পঞ্চম দিনে পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যকার সংঘর্ষে সবচেয়ে বেশি নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

দেশটির সেনাবাহিনীর বরাতে জানানো হয়, বিক্ষোভকারীরা বাগদাদে দুই পুলিশ অফিসারসহ চারজনকে হত্যা করেছে।

এর আগে দেশটির প্রেসিডেন্ট আদেল আব্দেল মেহেদি বিক্ষোভকারীদের সকল দাবি মেনে নিয়ে সবাইকে শান্ত থাকতে বলেন। তার এ ঘোষণার পরও আন্দোলন চালিয়ে যায় বিক্ষোভকারীরা।

বিক্ষোভকারীরা বলেন, ‘প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।’

দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে মেহেদি ক্ষমতায় আসার পর, এই বিক্ষোভ তার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার (১ অক্টোবর) থেকে এই আন্দোলন চলে আসছে। আন্দোলনের প্রথম দিনে সাত জন নিহত হলে রাজধানী বাগদাদজুড়ে কারফিউ জারি করা হয়। সরকারি বাহিনীর নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেঙে বিক্ষোভ করতে থাকেন আন্দোলনকারীরা। যা ছড়িয়ে পড়ে অন্যান্য শহরে। ফলে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের চলমান সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বেড়ে চলেছে।