বৃহস্পতিবার | ৬ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ১৫ই জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী

রাজন দত্ত রাজু, কমলগঞ্জ

প্রকাশিত :

কমলগঞ্জে হতাশার আঁধার কাটিয়ে আলো পেলেন জমির উদ্দিন

রাজন দত্ত রাজু, কমলগঞ্জ
প্রকাশিত :

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে লেবু চাষে সফলতার মুখ দেখেছেন জমির উদ্দিন। হতাশার আঁধার কাটিয়ে আলোর সন্ধান যেন পেয়েছেন জমির উদ্দিন। তার বাড়ী কমলগঞ্জ উপজেলার বাল্লারপার গ্রামে। তার পিতা মো. আমীর আলী ছিলেন একজন দরিদ্র কৃষক।

জমির উদ্দিন জানান, ২০০২ সালে এসএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হবার পর দ্বিতীয়বার পরীক্ষা দেবার মতো অর্থ তার কাছে ছিল না। ২০০৩ সালে এইচএসসির ফরম ফিলাপের টাকা বাবা দিতে ব্যর্থ হন। এমতাবস্থায় সংসারের জন্য কিছু করার দায়িত্ববোধ জাগ্রত হয়। পরিবারের অভাব অনটনের দিকে তাকিয়ে সংসারের হাল ধরার জন্য তাকে ছুটতে হয় জীবিকার অহ্নেষণে। এক নিকট আত্বীয়ের কাছ থেকে মাত্র ৫ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে প্রথমে শুরু করেন জ¦ালানী কাঠের ব্যবসা। এভাবেই সংসারের দায়িত্ব নিজ কাঁধে নেন। এই ব্যবসা করে কিছুটা আয় রোজগার হলেও কিন্তু হতাশা কাটছিল না। এই জালানী কাঠ সংগ্রহ করতে গিয়ে তিনি পরিচিত হয়ে উঠেন মাঝেরছড়াসহ বিভিন্ন এলাকার লেবু বাগান মালিকদের সাথে এবং তাদেরই পরামর্শে একসময় তিনি সিদ্ধান্ত নেন লেবু চাষ করার।

অতঃপর ২০১৫ সালে পদ্মছড়া এলাকার বাসিন্দা দু’জন চা শ্রমিকের বসত বাড়ীর আঙ্গিনায় শুরু করেন কাগজী লেবুর চাষ। তাদের বসতবাড়ীর অব্যবহৃত প্রায় আড়াই একর জমি ১৫ বছরের জন্য বার্ষিক ১০ হাজার টাকা করে প্রদানের শর্তে বন্ধুবান্ধবদের কাছথেকে ধারদেনা করে ৬০ হাজার টাকা সংগ্রহ করে লেবুচাষ শুরু করেন। তারপর থেকে আর তাকে পেছনে তাকাতে হয়নি, সফলতার যাত্রা শুরু সেখান থেকেই। ৬০০ টি লেবু গাছ থেকে প্রতি বছর প্রায় পাঁচ লাখ টাকার লেবু বিক্রি করেন। ২০১৮ সালের শেষের দিকে লেবু গাছে কলম কাটা শুরু করেন। এ বছর প্রায় ১০০০ হাজার কলম কাটেন। ইতোমধ্যে ৯০০ টি কলম বিক্রি করেছেন ৫০ টাকা দরে। পাশাপাশি তিনি তার খামারে নাগা মরিছ,লাউ, কুমড়া, করলা ও কলাসহ বিভিন্ন সাথী ফসলেরও চাষ করেছেন। এসব সাথী ফসল বিক্রয় বাবদ বছরে তার আয় হচ্ছে আরও লাখ খানেক টাকা।

লেবু চাষ এবং কলম কেটে বিক্রি করে এখন স্বাবলম্বী জমির উদ্দিন। তার সংসারে স্ত্রী, এক ছেলে এবং বাবা, মা ও এক ছোট ভাইকে নিয়ে সুখের সংসার। সংসারে আর কোনো অভাব অনটন নাই। আগে অন্যের জমিতে কাজ করতে হতো তার, এখন তার লেবু বাগানে শ্রমিক কাজ করে।
জমির উদ্দিনের জীবনের হতাশা দূর হয়েছে। তার দেখে মিজান মিয়া, রমজান মিয়া, জহির মিয়া, আনোয়ার, সাঈদ মিয়াসহ আরও ২০ জন লেবু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন।

উপজেলা কৃষিসম্প্রসারণ অধিদফতরের মতে, জমির উদ্দিন খুব ভালো চাষী, তার পরিশ্রম তাকে সফলতা এনে দিয়েছে। তার চাষ দেখে এলাকার অনেকে আগ্রহী হয়েছে। তারাও লেবু চাষ শুরু করেছে। উপজেলা কৃষি বিভাগ সর্বদা তাদের পাশে আছে।

এই বিভাগের আরো নিউজ

মৌলভীবাজারে অটোরিকশার ধাক্কায় অজ্ঞাত নারী নিহত
বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা আত্মসাৎ করল ভাই, কষ্টে বোনের আত্মহত্যা
কমলগঞ্জে মুমূর্ষু রোগীকে আলীনগর লতিফিয়া সমাজকল্যাণ পরিষদের আর্থিক সহায়তা
সাপের কামড়ে সিলেট পলিটেকনিকের শিক্ষার্থীর মৃত্যু
মৌলভীবাজারে বিজিবির গুলিতে চোরাকারবারি নিহত
দলই চা বাগান বন্ধ ঘোষণা: শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনা-পুলিশ মোতায়েন
কমলগঞ্জের কানিহাটি চা-বাগানে টিএসএস-এর ২টি বৈদিক শিক্ষা কেন্দ্র শুভ উদ্বোধন
শ্রীমঙ্গলে আমরইল ছড়া চা বাগানে লাশ উদ্ধার

আজকের সর্বশেষ সব খবর