শহরতলীর গোবিন্দপুর খোয়াই নদীর বাঁধ এখন মাদকসেবীদের নিরাপদ আস্তানায় পরিণত হয়েছে। এ অবস্থায় বিপদগামী হচ্ছে যুবসমাজ। পাশাপাশি এলাকায় বাড়ছে অপরাধ প্রবণতা।

জানা যায়, গোবিন্দপুর গ্রামের মৃত লাল মিয়ার পুত্র আবিদ নুর নামে এক ব্যক্তি খোয়াই নদীর বাঁধে গড়ে তুলেছেন বিশাল কলা বাগান। ওই বাগানের ঝোঁপ ঝাড়ে প্রতিদিন বসে মাদক সেবনের আসর। উঠতি বয়সের যুবক থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এখানে গাজা, ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক সেবন করে থাকে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন দূর্গম এলাকা হওয়ায় সহজে আইনশৃংখলা বাহিনী পৌছাতে পারেনা এখানে। এ সুযোগে মাদকসেবীরা নিরাপদ আস্তানায় পরিণত করেছে ওই বাগানটিকে। বিশেষ করে হবিগঞ্জ শহরের উঠতি বয়সের যুবকরা ওই আস্তানায় যোগ দেয় প্রতিনিয়ত। মাদক সেবনের পাশাপাশি সেখানে চলে জুয়ার আসর।

শনিবার (৬ মার্চ) বিকেলে সরেজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে দেখা যায় মাদকসেবীদের ভীড়। সাংবাদিক পরিচয় জানার পর পালিয়ে যায় তারা। এ সময় কথা হয় গোবিন্দপুর এলাকার রিয়াদ নামে এক মাদকসেবীর সাথে। রিয়াদ জানায়, সে শহরের পিটিআই রোডস্থ একটি ফার্নিচার দোকানের শ্রমিক। শনিবার সাপ্তাহিক বন্ধের দিন হওয়ায় সে বাগান মালিক আবিদ নুরের আস্তানায় গিয়ে মাদক সেবন করে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, বাগান মালিক আবিদ নুর নিজেই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। মূলত মাদক ব্যবসার প্রসারের জনই তিনি এখানে কলা বাগানের নামে আস্তানা গড়ে তুলেছেন। এছাড়াও একই গ্রামের আব্দুল নুরের পুত্র বাবুল মিয়াও ওই এলাকায় পৃথক আরেকটি আস্তানা গড়ে তুলেছেন। ফলে বিপদগামী হচ্ছে এলাকার যুব সমাজ, বাড়ছে নানান অপরাধ কর্মকান্ড। আস্তানাটি নির্মূল করতে প্রশাসনিক ব্যবস্থার জোর দাবী জানান তারা।