ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ শহর গাজায় ইসরায়েলের বিমান হামলায় এখন পর্যন্ত ২১৮ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৬৩ জন শিশু ও শতাধিক নারী।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মঙ্গলবার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুকে আবারও টেলিফোনে দেশটির প্রতি তার সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। সেই সঙ্গে হামাস ও ইসরায়েলকে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন।

জো বাইডেনের যুদ্ধবিরতির আহ্বানের পরও সংঘাতের দশম দিনে কয়েক ডজন বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এখন ইসরায়েলের বিমান হামলায় গাজায় দেড় হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। এর বেশির ভাগই নারী ও শিশু।

এ ছাড়া দখলকৃত পশ্চিম তীরেও চলছে সংঘর্ষ। মঙ্গলবারও ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে সেখানে আরও ৪ জন ফিলিস্তিনি নিহত হন। এতে পশ্চিম তীরে নিহত ব্যক্তির সংখ্যা বেড়ে ১৭ হয়েছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, হামাসের রকেট হামলায় এখন পর্যন্ত ১২ ইসরায়েলি নিহত হয়েছে। যার মধ্যে দুজন শিশু। হামলায় আহত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০০ জনে।

সংঘাতের জন্য হামাসকে অভিযুক্ত করে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গান্টস এক ভিডিও বার্তায় জানান, গত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে সংঘাতপূর্ণ এমন পরিস্থিতির জন্য হামাসই দায়ী। এ খবর প্রকাশ করে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বেনি গান্টস আরও বলেন, ‘গাজায় হামাসের শক্তিকে পুরোপুরি দমিয়ে না দেয়া পর্যন্ত বিমান হামলা অব্যাহত থাকবে।’

হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতির প্রধান জোসেফ বোরেল সংঘাত বন্ধে ইইউ দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে ভার্চুয়ালি বৈঠক করেছেন। সেখানে হাঙ্গেরি ছাড়া অন্য সব দেশ যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব দিতে একমত হয়েছে।