দিনরাত ডেস্ক : চাকরির অভাবে এবং চড়া সুদে বেসরকারি সংস্থার কাছ থেকে নেয়া ঋণের চাপে আত্মহত্যা করেছে একই পরিবারের চারজন। ভারতের ত্রিপুরা পশ্চিম জেলার প‚র্ব চানপুর এডিসি ভিলেজের সন্ন্যাসীমুড়ায় এ ঘটনা ঘটেছে।

আনন্দবাজার পত্রিকা তাদের এক প্রতিবেদনে জানায়, পেশায় দিনমজুর পরেশ তাঁতি শনিবার বাড়ির তিনজনকে নিয়ে আত্মহত্যা করেন। কারণ হিসেবে প্রাথমিকভাবে উঠে আসে দারিদ্র ও ঋণের বোঝার কথা। অবশ্য ত্রিপুরার বিজেপি-আইপিএফটি জোট সরকার অভাবের কারণে মৃত্যুর কথা অস্বীকার করেছে।
রোববার সন্ন্যাসীমড়ার পরিস্থিতি সরেজমিন দেখতে যান সেখনকার বিরোধীদলীয় নেতা মানিক সরকার, সিপিএমের আরও দুই বিধায়ক সুদন দাস ও রতন ভৌমিক, স্বশাসিত জেলা পরিষদের কার্যনির্বাহী সদস্য পরীক্ষিত মুরা সিংহ।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলার পর তারা গণমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, গোটা ত্রিপুরায় অরাজকতা চলছে। কাজ ও খাদ্যের অভাব চার দিকে। এলাকার লোকজন ও পরেশ তাঁতির শাশুড়ি অঞ্জনা তাঁতির সঙ্গে কথা বলে তারা জানতে পেরেছেন, চাকরি এবং অন্য কাজ না-পাওয়ায় অনাহারের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল পরিবারে। সে কারণেই চরম পথ বেছে নেয় পরেশের পরিবার।