হঠাৎ দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ার পর চাল আমদানির অনুমতি দিয়েছে সরকার। সেই সাথে কমানো হয়েছে শুল্ক হারও।

আমনের চাল বাজারে আসার পরও এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে চার থেকে পাঁচ দাম বেড়ে যাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নিল খাদ্য মন্ত্রণালয়।

চালের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সরকারের প্রদক্ষেপ জানাতে রোববার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে আসেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

মন্ত্রী বলেন, ‘বাজার নিয়ন্ত্রণ করতেই আমরা বেসরকারিভাবে আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আগে ৬২ দশমিক ৫ শতাংশ শুল্ক ছিল, এখন ২৫ শতাংশ করা হয়েছে। তবে লক্ষ্য রাখতে হবে কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।’

অবশ্য সরকার অবারিত আমদানির সুযোগ দেবে না। ব্যবসায়ীদের আবেদন করতে হবে তারা কী পরিমাণ চাল আনতে চান। তা পর্যালোচনা করে পরিমাণ বেধে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘২৫ শতাংশ ট্যাক্সে চাল আমদানি করতে পারবেন ব্যবসায়ীরা। তারা মন্ত্রণালয়ে আবেদন করবেন ১০ জানুয়ারির মধ্যে। মন্ত্রণালয় কাকে কতটুকু ছাড়পত্র দেবে, সেটার এলসি হবে। সেটা আমরা মনিটরিং করব। বেসরকারিভাবে এই চাল আমদানি করে চালের বাজার নিয়ন্ত্রণ করা হবে।’

খাদ্য সচিব নাজমুনারা খানম বলেন, ‘আমরা বেসরকারিভাবে ২৫ শতাংশ শুল্কে চাল আমদানির যে অনুমতি দিয়েছি, সেটি অনেক রেস্ট্রিকটেড হবে, নীতিমালা করা হবে। এখানে কে কতটুকু আমদানি করতে পারবে সেটা নির্ধারণ করা হবে। কিন্তু বেশি আমদানি করা যাবে না তাহলে কৃষক বঞ্চিত হবে।’

বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবির হিসাবে, গত এক মাসে চালের দাম মানভেদে ৬.৬৭ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ১৪ দশমিক ১৪ শতাংশ বেড়েছে, যা কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা।

এক বছরে মোটা চালের দাম বেড়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ, সরু চালের দাম বেড়েছে ১৯ থেকে ২৫ শতাংশ, যা টাকায় ১৫ থেকে ১৬ টাকা।

মন্ত্রী জানান, সরকারিভাবে চার লাখ মেট্রিক টন এবং জিটুজি পদ্ধতিতে দেড় লাখ মেট্রিক টন চাল আমদানি করা হবে।

তবে বেসরকারিভাবে কী পরিমাণ চাল আমদানি করা হবে, সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেন নি খাদ্যমন্ত্রী। তার দাবি, চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য যতোটা আমদানি করা উচিত সেটা করা হবে।

তবে বোরো মৌসুম চলে এলে আমদানি বন্ধ করে দেয়া হবে। এরপর বোরোর ফলন দেখে আমদানির ক্ষেত্রে আবারও সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানান সাধন চন্দ্র মজুমদার।