রাশিয়ার পর চীন উদ্ভাবিত করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকাও বাংলাদেশে প্রয়োগের অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন।

তিনি জানিয়েছেন, বাংলাদেশের কোনো কোম্পানি চাইলে রাশিয়া ও চীনের টিকা উৎপাদনের অনুমতি দেয়া হবে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ডোজগুলো বিদেশেও রপ্তানি করা যাবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ২৪তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষে বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত হয়ে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী রাশিয়ার টিকায় অনুমোদন দেয়ার পর চীনের সিনোফার্ম উদ্ভাবিত টিকা সিনোভ্যাকের জরুরি ব্যবহার অনুমোদনে সুপারিশ করে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের বিশেষজ্ঞ কমিটি।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান বুধবার সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, ‘আজ (বুধবার) দুপুরে এ বিষয়ে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের বিশেষজ্ঞ কমিটির মিটিং হয়। তারা সবকিছু দেখে অনুমোদনের সুপারিশ করেছে। তবে এখনও চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়নি।’

ঔষধ প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তার বক্তব্যের পরদিন চীনের টিকা অনুমোদনের বিষয়টি জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী রাশিয়ার টিকা স্পুৎনিক-ভির মতো চীনের টিকা সিনোভ্যাকের উৎপাদনও বাংলাদেশে হবে।