চুনারুঘাটে সঠিক চিকিৎসা না পেয়ে চা শ্রসিকের মৃত্যুর অভিযোগে দুইদিন ধরে চলা আন্দোলন অবশেষে স্থগিত করেছে চা শ্রমিকরা।

সোমবার দুপুরে সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (চুনারুঘাট সার্কেল) মহসিন মুরাদ ও চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আশরাফ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তদন্ত সাপেক্ষে আয়ানুগ ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতির পরিপ্রেক্ষিতে শ্রমিকরা আন্দোলন স্থগিত করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, চাঁনপুর চা বাগানের ম্যানেজার শামীম আহমেদ, আমু চা বাগানের ম্যানেজার রেজাউল করীম, নালুয়া চা বাগানের ম্যানেজার ইফতেখার এনাম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড নেতা রুমন ফরাজি, চা শ্রমিক নেতা স্বপন সাওতাল, নৃপেন পাল, কাঞ্চন পাত্র ও যুবরাজ ঝরা প্রমুখ।

এরআগে রোববার সকাল থেকে চাঁনপুর চা বাগানের শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে আন্দোলন শুরু করেন। তাদের সাথে যোগ দেয় আমু ও নালুয়া চা বাগানের শ্রমিকরা।

চা শ্রমিক নেতা নৃপেন পাল অভিযোগ করেন, রোববার সকালে সুজন তাঁতী (২৫) নামে এক চা শ্রমিকের বুকে ব্যাথা শুরু হলে তাকে চাঁনপুর চা বাগান হাসপাতালে ভর্তি হয়। কিন্তু সেখানে চিকিৎসকরা তাকে প্যারাসিটামল ছাড়া আর কোন চিকিৎসা দেননি। যে কারণে হাসপাতালেই তার মৃত্যু হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে চা শ্রমিকরা রোববার সকাল থেকেই কাজ বন্ধ করে বিচারের দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন।

নিহত চা শ্রমিক সুজন তাঁতী উপজেলার চাঁনপুর বাগানের কুশ তাতীর ছেলে।

চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আশরাফ বলেন, ‘আমরা চা শ্রমিকের মৃত্যুে বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান করছি। যদি চিকিৎসার অবহেলায় তার মৃত্যু হয় তাহলে আমরা ব্যবস্থা নেব বলে আশ্বাস দিয়ে চা শ্রমিকদের আন্দোলন বন্ধ করতে বলেছি। তারা আমাদের কথা মেনে নিয়ে কাজে যোগদান করেছে।’