গুলশানের ফ্ল্যাট থেকে কলেজ ছাত্রীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় তার পরিবারকে বিনামূল্যে আইনি সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টে আলোচিত আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

বুধবার সুপ্রিমকোর্ট অঙ্গণে দাঁড়িয়ে তিনি এ ঘোষণা দেন।

সোমবার সন্ধ্যায় যে তরুণীটির মরদেহ উদ্ধার হয়েছে, তিনি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। তার বাবা-মা মারা গেছেন আগেই। এখন আছেন ভাই বোন।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, তার বাবা-মা কেউ পৃথিবীতে নেই। এই এতিম মেয়ের জন্য আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যদি এর চেয়ে ভালো আইনজীবী না পান তাহলে আমি তার পক্ষে দাঁড়াতে চাই। তার পরিবারকে আমি আইনি সহায়তা দিতে চাই।

এই ঘটনায় আসামির বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারও দৃষ্টি আকর্ষণ করেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির এই নেতা।

তিনি বলেন, আমি আমার নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটাই আবেদন থাকবে। আপনি তো শক্তিশালী যুদ্ধাপরাধীদেরও ৩০/৩৫ বছর পরেও তাদেরকে বিচারের মুখোমুখি করেছেন। তাই আমার বিশ্বাস জনগণের যে প্রত্যাশা আপনার ওপর। বসুন্ধরা হোক বা যে শিল্প প্রতিষ্ঠানই হোক না কেন, তাদের বিচার এই মাটিতে হবে এবং সুষ্ঠ বিচার হবে। জনগণের সামনে এটা প্রমাণিত হবে যে, আপনি কোনো কিছুতেই পিছপা হননি। সে যেই হোক না কেন।

এই ঘটনায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তানেরা কোনো কর্মসূচি না দেয়া নিয়েও প্রশ্ন তোলেন ব্যারিস্টার সুমন।

গত ২৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় গুলশানের ১২০ নম্বর সড়কের ১৯ নম্বর বাসার একটি ফ্ল্যাটে থেকে তরুণীর উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় তরুণীর বড় বোন বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ এনে মামলা করেছেন।

পরদিন ঢাকার একটি আদালত এই শিল্পপতির বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আদেশ দিয়েছে।