সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় মানসিক প্রতিবন্ধী এক পাগলি ছেলে সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। তবে ওই সন্তানের বাবা হলেন না কেউ। এ নিয়ে উপজেলা জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। তবে ওই মানসিক প্রতিবন্ধী পাগলির সম্পর্কে কোনো তথ্যই পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মানসিক প্রতিবন্ধী ওই পাগলি চার মাস পূর্বে উপজেলার সদর ইউনিয়নের তাহিরপুর বাজারের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করেন। বাজার ও হোটেলগুলোতে আসা মানুষজন যা দিত তাই খেয়ে তার চলছি। দিন দিন তার শারীরিক পরিবর্তন হতে থাকলে অন্তঃসত্ত্বার বিষয়টি সবার নজরে পড়ে। তার সন্তান ভূমিষ্ঠের বিষয়টি নিয়ে বাজারের ব্যবসায়ীরা চিন্তিত হয়ে পড়েন।

সোমবার (৩ মে) সকালে পাগলির প্রসব ব্যথা উঠলে তাকে বাজার কমিটির দায়িত্বশীল লোকজন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে ফুটফুটে একটি ছেলে সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়। তাদেরকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। দুজনই সুস্থ রয়েছে বলে জানান কর্তব্যরত চিকিৎসকরা।

তাহিরপুর বাজার বনিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এরশাদ আলী বলেন, মানসিক প্রতিবন্ধী ওই পাগলি চার মাস পূর্বে কোথা থেকে এসে বাজারে অবস্থান শুরু করে। আজ সকালে প্রসব ব্যথা উঠলে লোকজন তাকে নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই। পরে একটি ছেলে সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়।

স্থানীয় এক নারী পাগলির বাচ্চাকে নিজ সন্তানের মতো লালন-পালন করতে চান। বিষয়টি নিয়ে তিনি প্রশাসনের কাছে দাবি জানান।

তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সুমন চন্দ্র বলেন, শিশুটি ও মা ভালো আছে। কোনো সমস্যা নেই। তারা আমাদের কাছে পর্যবেক্ষণে রয়েছে। এখন প্রশাসন যে ব্যবস্থা নেয় সে ভাবেই পদক্ষেপ নেয়া হবে।

তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ তরফদার জানান, এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ জানান, ঘটনাটি শুনেছি। প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।