সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার গহরপুরে ইটভাটার ব্যবস্থাপক ধীরাজ পালকে হত্যার বিচারের দাবিতে দক্ষিণ সুরমায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী। এসময় তারা জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার, সুষ্ঠু তদন্ত ও দ্রুত বিচারের দাবি জানান।

রোববার (৩০ মে) সকাল ১১ টায় দক্ষিণ সুরমায় মানববন্ধন শেষে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেন গোটাটিকর, আলমপুর ও বঙ্গানগরসহ আশপাশ এলাকার বিক্ষুব্ধ জনতা। দুই ঘণ্টা ধরে চলমান সড়ক অবরোধ পরে পুলিশ ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) এর আশ্বাসে সড়ক অবরোধ তুলে নেন বিক্ষুব্ধরা।

শুক্রবার বেলা পৌনে দুইটার দিকে ধীরাজ পালকে হত্যার ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে রোববার সকালে দক্ষিণ সুরমায় মানববন্ধন করেন গোটাটিকর, আলমপুর ও বঙ্গানগরসহ আশপাশ এলাকাবাসী। এসময় সিলেট সটি করপোরেশনের ২৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আজম খান মানববন্ধনে একাত্মতা পোষণ করেন ও ধীরাজ পালকে হত্যার বিচারের দাবি জানান।

এ সময় কাউন্সিলর আজম খান মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীদের ধীরাজ হত্যার বিচারের আশ্বাস দেন। পরে বিক্ষুব্ধ জনতা ধীরাজ হত্যার বিচারের দাবি ও দ্রুত সময়ের মধ্যে আসামীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি প্রদানের দাবি জানিয়ে সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেন।

পরে মোগলাবাজার থানার ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএমের উপস্থিতে ও সিলেট রেঞ্জ এর ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহমেদ পিপিএম, সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিনের দেয়া আশ্বাসে সড়ক অবরোধ তুলে নেন বিক্ষুব্ধরা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ২৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইরান আহমদ, সাধারণ সম্পাদক সয়েফ খান, গোটাটিকর ব্রাদার্স ক্লাবের সভাপতি বাবর আহমদ। এছাড়াও মানববন্ধনে অংশ নেন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার অন্তত ৩ শতাধিক মানুষ।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার দুপুরে বালাগঞ্জের গহরপুর রতনপুর ব্রিকফিল্ডের ব্যবস্থাপক ধীরাজ পালকে তার কর্মস্থলে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। এরপর দুর্বৃত্তরা ব্রিকফিল্ডের টাকাপয়সা লুট করে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর স্থানীয়রা ধীরাজ পালকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর বালাগঞ্জ থানা পুলিশ ও জেলা গোয়েন্দা পুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্যে আটক করেছে।

এদিকে গতকাল শনিবার দুপুরে ধীরাজের মরদেহের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর ও বিকেলে মরদেহের সৎকারের করা হয়। গতকাল রাতে ধীরাজের পরিবারের পক্ষ থেকে অজ্ঞাতনামা আসামির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।