নবীগঞ্জ উপজেলার ঘোলডুবা গ্রামের আতর আলীর ছেলে সোহেল মিয়া তার চাচি নাজমা খানমের জায়গা দখলে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নাজমা খানমের স্বামী ঘোলডুবা গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী মকদ্দুছ মিয়া ২০২০ সালের ৫ সেপ্টেম্বর মারা যান। তিনি মারা যাবার পর তার স্ত্রী নাজমা খানম কিডনি রোগে আক্রান্ত হন। এ সময় চিকিৎসার ব্যায় বহনের জন্য স্বামীর ক্রয়কৃত নবীগঞ্জ শহরের ওসমানী রোডে ১৩.৬২ শতক ভূমি একই গ্রামের সাবেক মেম্বার লন্ডন প্রবাসী আল হেলালের নিকট বিক্রি করতে চুক্তি করেন। ইতোমধ্যে জায়গার দাম ৪০ লাখের মধ্যে ১০ লাখ টাকা নিয়ে নিয়েছেন। সম্প্রতি ওই জায়গাটি ক্রেতা আল হেলালের ভাগনা রাজিবের কাছে দখল সমজিয়ে দেয়া হয়। রাজিব দখল বুঝে দোকান ঘরে তালা লাগিয়ে দেন।

এ খবর জানতে পেরে সোহেল তার সহযোগিদের নিয়ে এসে ওই জায়গার সামনের দোকান ঘরের তালা ভেঙে ঘর দখল করে নেন। এ নিয়ে আল হেলালের ভাগনা রাজিব সোহেলের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ওসির তলবে শুক্রবার সে নবীগঞ্জ থানায় হাজির হয়। এ সময় সুহেল জানায় ওই জায়গা ২০০৮ সালে তার চাচা মকদ্দুছ মিয়া তাকে রেজিষ্ট্রি দানপত্র দলিল করে দিয়ে গেছেন। এক পর্যায়ে ওসি তাকে কাগজ দেখাতে বললে সে জানায়, কাগজ আদালতে জমা আছে। বৃহস্পতিবার কাগজ দেখাবে। পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আবারো ওসির কক্ষে উভয় পক্ষকে নিয়ে বসেন ওসি আজিজুর রহমান। এ সময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী সেলিমও উপস্থিত ছিলেন। ওই দিনও রেজিষ্ট্রি দানপত্র দলিল দেখাতে পারেনি সোহেল।

এ ব্যাপারে নাজমা খানম জানান, তার ভাসুরের ছেলে সোহেল তার কাছে ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেছে। তাহলে সে জায়গা ছেড়ে দেবে। এবিষয় নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে ঘর জ্বলিয়ে দেয়ার হুমকি দেয় সোহেল।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত সোহেল মিয়ার সাথে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।