হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ ও মাধবপুর পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে।

সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হলেও ভোটাররা কেন্দ্রে আসতে শুরু করেন ৮টা বাজার আগেই। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বাড়তে থাকে।

দুই পৌরসভাতেই পুরুষ ভোটারের চেয়ে নারী ভোটারের উপস্থিতি বেশি লক্ষ্য করা গেছে।

এখন পর্যন্ত কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। প্রতিটি কেন্দ্রেই তিন স্তরে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

নবীগঞ্জ পৌরসভায় মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে কোন দলেই নেই বিদ্রোহী প্রার্থী। এখানে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতিক নিয়ে লড়ছেন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায় বনমন্ত্রী শাহাবউদ্দিনের জামাতা গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরী, বিএনপি থেকে ধানের শীষ প্রতিক নিয়ে লড়ছেন পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব ছাবির আহমেদ চৌধুরী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন উপজেলা মিনিবাস মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম সুমন।

৯টি ওয়ার্ড নিয়ে ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় নবীগঞ্জ পৌরসভা। পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ১৮ হাজার ৬শ’ ৯৯ জন। এ পৌরসভায় সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সির পদে ৪১ জন প্রার্থী ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মাধবপুর পৌরসভায় নৌকা মার্কা নিয়ে লড়ছেন শ্রীধাম দাশগুপ্ত। প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে লড়ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মাধবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও দুইবারের মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ মো. মুসলিম (জগ), গত নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হিরেন্দ্র লাল সাহার ছোট ভাই পংকজ কুমার সাহা (নারকেল গাছ) ও বিএনপির হাবিবুর রহমান মানিক।

এখানে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৭ জন আর সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

১৯৯৭ সালে পৌরসভাটি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকেই মেয়র পদ আওয়ামী লীগের দখলে রয়েছে। বর্তমানে এটি প্রথম শ্রেণির পৌরসভা। ভোটার রয়েছেন ১৫ হাজার ৯৮৭ জন।