ভারতের একটি রিয়েলিটি মিউজিক শো থেকে উঠে আসেন সঙ্গীত শিল্পী মাইনুল আহসান নোবেল। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য এই শিল্পীকে ঘিরে আলোচনা-সমালোচনা থামছেই না। একের পর এক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের পর এবার নিজের ভুল স্বীকার করেছেন নোবেল।

মঙ্গলবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাস দিয়ে ভুল স্বীকার করেছেন তিনি। নোবেল লিখেছেন, ‘রোড অ্যাক্সিডেন্টের পর আমাকে কেউ একবার কল করে খবর নিলেন না। নিজের আবেগ আসলে ধরে রাখতে পারিনি। আমি মাত্র ২৪ বছর বয়সী একজন তরুণ শিল্পী। আমিও তো দেশের জন্য সুনাম কুড়িছে এনেছি।’

তিনি বলেন, ‘আমি না হয় ভুল করব। সেই ভুল ধরিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব তো আপনাদের। সেখানে অনেকেই আমাকে প্রতিনিয়ত হেয় করছেন। তাই আসলে রাগ সামলাতে পারিনি।’

নোবেল আরও লেখেন, ‘আমি সকল সাংবাদিক ভাইদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে কথা দিচ্ছি- পরবর্তীতে এরকম ভুল আর হবে না, সবার প্রতি ভালোবাসা, ঈদ মোবারক।’

গায়ক মাইনুল আহসান নোবেল পরিচিতি পেয়েছেন জি বাংলার সংগীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো সারেগামাপা থেকে। কভার করেছেন দেশের লিজেন্ডদের গান। রাতারাতি খ্যাতি পেয়ে যান নোবেল। খ্যাতি পাওয়ার পর একাধিক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের সঙ্গে নিজেকে জড়িত করেছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষ করে পোস্ট, দেশের জাতীয় সংগীত নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য, লিজেন্ড শিল্পীদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন নোবেল। সবশেষ সড়ক দুর্ঘটনায় বৃদ্ধকে বাঁচানোর মিথ্যা গল্প শুনিয়েছিলেন।

এরপর নগর বাউল জেমসকে নিয়ে আপত্তিকর ও কুরুচিপূর্ণ স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। জনপ্রিয় গীতিকার-সুরকার ইথুন বাবুকে ‘চোর’ বলেও উল্লেখ করেছেন নোবেল। যদিও নোবেল দাবি করছেন, তার ফেসবুক হ্যাক হয়েছে। তবে পুরোপুরি নয়, আংশিক।

সেই বিতর্কের রেশ না কাটতেই নতুন বিতর্কে জড়ান নোবেল। গানের সুর ও সংগীতায়োজনের মালিকানা নিয়ে সংগীত পরিচালক আহমেদ হুমায়ূনের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন তিনি। তারপর এই বিষয়ে খোঁজ নিতে এক সাংবাদিক তাকে কল করলে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালিসহ হুমকি দেন নোবেল।