জানা ছিল ছাড়িয়ে যাবেন। ঠিক কবে সেটা নিয়ে কিছুটা সংশয়ে ছিলেন ফ্যানরা। প্রজন্মের সেরা বুটজোড়া থেকে আগের মতো আসছিল না প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা একের পর এক গোল। এই মৌসুমে ১৩ ম্যাচে মাত্র ৬ বার লক্ষ্যভেদ করেছেন বার্সেলোনার বিখ্যাত ১০ নম্বর।

অবশেষে লিওনেল মেসি ভাঙলেন বহুল প্রতীক্ষিত সেই রেকর্ড। এক ক্লাবের হয়ে সর্বোচ্চ গোলসংখ্যায় ছাড়িয়ে গেলেন পেলেকে। বার্সেলোনার জার্সি গায়ে মেসির গোল এখন ৬৪৪। সান্তোসের জার্সি গায়ে ফুটবল সম্রাটের গোল ছিল ৬৪৩।

ভালেনসিয়ার বিপক্ষে আগের ম্যাচে গোল করে পেলের পাশে বসেছিলেন মেসি। মঙ্গলবার রাতে ভায়াদোলিদের বিপক্ষে ৩-০ গোলে জয়ের ম্যাচে দলের তৃতীয় গোলটি করেন বার্সা অধিনায়ক। আর ছাড়িয়ে যান পেলেকে।

প্রীতি ম্যাচ হিসাবে আনলে পেলে অনেকটাই এগিয়ে মেসির চেয়ে। ১,১১৬ ম্যাচে ফুটবল সম্রাটের গোল ১,০৯১। বার্সেলোনার হয়ে প্রীতি ম্যাচে মেসি গোল করেছেন ৩৪। সেগুলোসহ তার মোট গোল ৬৭৬।

আর্জেন্টিনার জার্সিতে গোলসহ হিসাব করলে মেসির আনুষ্ঠানিক গোল ৭১৫। ক্লাব ও জাতীয় দল মিলিয়ে পেলের গোল মোট ৭৬২। অর্থাৎ মেসি এখনও পিছিয়ে ৪৭ আনুষ্ঠানিক গোলে।

মেসির রেকর্ডের রাতে জয় পেয়েছে বার্সেলোনাও। ভায়াদোলিদের বিপক্ষে মেসির গোল আসে ৬৫ মিনিটে। তার আগে ২১ মিনিটে ক্লেমঁ লংলে এবং মার্টিন ব্র্যাথওয়েইটের ৩৫ মিনিটের গোলে প্রথমার্ধে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে ছিল তারা।

এই জয়ে ১৪ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের পাঁচ নম্বরে উঠে এসেছে বার্সেলোনা। শীর্ষে থাকা আতলেতিকো মাদ্রিদ ২-০ গোলে জয় পেয়েছে রিয়াল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে। তাদের পয়েন্ট ৩২। ম্যাচ খেলেছে ১৩টি।

বছর শেষ করার আগে ৩০ ডিসেম্বর এইবারের বিপক্ষে নামতে হবে রোনাল্ড কুমানের দলকে। এরপর নতুন বছরে ৪ জানুয়ারি উয়েস্কার মাঠে যাবে ব্লু গ্রানা।

রেকর্ডের রাতে অবশ্য সব আলো ছিল মেসিকে ঘিরেই। টুইটারে ইংলিশ কিংবদন্তি স্ট্রাইকার গ্যারি লিনেকার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সঙ্গে সঙ্গেই। মেসির রেকর্ড গোলের মুহুর্তটিকে ঐতিহাসিক উল্লেখ করে লিখেছেন, ‘মেসির রেকর্ড ভাঙতে হলে কোনো খেলোয়াড়কে এক ক্লাবের হয়ে ৪৩ গোল করে করতে হবে প্রতি মৌসুম। টানা ১৫ বছর।’

ম্যাচ শেষে ইনস্ট্যাগ্রামে পোস্ট করে মেসি নিজের অনুভূতি ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন। নিজের ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিখেছেন, ‘আমি যখন ফুটবল খেলা শুরু করি তখন কোনো রেকর্ড ভাঙ্গার কথা মাথায় ছিল না। বিশেষ করে পেলের রেকর্ডটি। যেটি এখন আমার। আমার পরিবার, সতীর্থ, বন্ধু, এতগুলো বছর ধরে আমাকে যারা সাহায্য করেছেন এবং যারা প্রতিদিন সমর্থন করে যাচ্ছেন তাদেরকে আমি কৃতজ্ঞতাই জানাতে পারি শুধু।’