মঙ্গলবার | ১১ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | ২১শে জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী

নুরউদ্দিন তালুকদার

প্রকাশিত :

বহুরূপী

নুরউদ্দিন তালুকদার
প্রকাশিত :

মাগো, ওরাই বহুরূপ ধারণ করে সেজে আছে-
আজ এই সমাজের উচ্চ মঞ্চে।
তারাই, যারা তোমার ছোট খোকাকে –
তুলে দিয়েছে হিংস্র জানোয়ারের কাছে।
তখন রক্তমাখা শার্ট ভিজে গেছে।
প্রাণ ঝুলেছে শূন্য থলিতে,
হাহাকার করেছে চারদিকে,
একগুচ্ছ পত্র লিখতে অনেক সাধ হয়েছে –
তোমার কোলে মাথা রাখতে অনেক ইচ্ছে হয়েছে।
তবে যে আর শ্রবণ করতে পার নাই –
তোমার ঐ সুমধুর খোকা ডাক।

মাগো, ওরাই তখন মিশে গেছে ওদের সাথে,
তোমার মেয়েকে নিয়ে করেছে তারা আমোদ পূর্তি,
শকুনের মত চিবে খেয়েছে তার দেহটাকে,
কেড়ে নিয়েছে তোমার সমস্ত কিছু।
ভেঙ্গে দিয়েছে তোমার সব স্বপ্ন,
কেড়ে নিয়েছে তোমার বোনের প্রাণ,
করেছে তোমার মাকে জর্জরিত।
যে খোকা স্বপ্ন দেখত তোমায় নিয়ে-
বড় হয়ে তোমার সব দুঃখ ঘুচে দিবে।

নদীর স্রোতে এগিয়ে যাবে সামনের দিকে –
ইচ্ছে জাগবে অনেক কল্পনার প্রয়াস।
আস্তে-আস্তে সবকিছু জয় করে নিবে;
তোমায় দিবে স্থান সমাজের শীর্ষে।
নীল শাড়ি নিয়ে আসবে তোমার জন্য,
বোনের জন্য আনবে লাল বেনারসি,
ছুটিতে এসে শুনবে তোমার কল্পকাহিনী।
হল না আর কিছুই –
অহেতুক রয়ে গেল অগোচরে,

মাগো, ওরাই আজ উচ্চবিলাসে স্থান করে নিয়েছে।
জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের করছে অবমাননা ;
বহুরূপ সেজে তাদের কীর্তির ভাগ নিচ্ছে –
থাকছে তারা এখন মহাসুখে।

মাগো, তোমার কন্ঠে আর সেই ঘুমপাড়ানি গান শুনা হল না-
হল না আর সমাজের মেকি দূর করা-
হল না আর তারুণ্যের বজ্রকন্ঠধ্বনি।

মাগো, ওরা তোমায় নিঃস্ব করেছে।
শোনেনি তোমার কোনো কথা,
বোঝেনি তোমার মায়ার বাঁধন।
তাকায়নি তোমার তীব্র প্রস্তর হাতের দিকে ;
যে হাত দিয়ে তুমি তোমার খোকাকে আগলে রাখতে।
সারাক্ষণ পরশের ছোঁয়া দিতে,
সামনের প্রেরণার সাহস জোগাতে,
মাথায় হাত ভুলিয়ে দিতে কিঞ্চিৎভাবে –
যা বহুদূর অগ্রসর হত।

চুড়মার করে দিয়েছে সব;
পিশাচ রাজাকারদের সহযোগিতায়।
তবে তারা বুঝেনি, তোমার হাতে ও যে তেজ আছে,
পরোয়া করো না কাউকে ;
তোমার মত শত-শত মা জন্ম নিয়েছে বাংলার বুকে।
বহুরূপীদেরকে নিঃশেষ করে দিবে একদিন।
সমূলে উদঘাটন করে দিবে সবকিছু।

মাগো, ওদের ছেলে-মেয়েরাই আজ শিক্ষিত।
রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ কাজে স্থান করে নিচ্ছে ;
তোমারই ছোট খোকার খেতাব –
তাদের নামে সুবাস বয়ে আনছে।
সবকিছু জালের মোহে চালিয়ে দিচ্ছে,
গরীব দুঃখীদের কষ্ট দিচ্ছে।

মাগো, তোমার কাছে আমার এক কথা।
এখনও কী চলবে তাদের রাজত্ব?
চলবে কী তাদের অশালীন কাজকারবার?
আমরা না এখন স্বাধীন জাতি?
এত ভয় কেন থাকবে আমাদের?
আমরা তো মাথা নোয়াবার পাত্র না।

মাগো, তোমার তীব্র প্রস্তর হাত থাকতে –
এত ভয় নেই আর আমাদের।
তুমিই পারবে বহুরূপীদেরকে নির্মুল করতে ;
জয় হউক তোমার অমিয় বাণী।

এই বিভাগের আরো নিউজ

আমারও ইচ্ছে হয়
জীবনের শেষ সময়ে চলে গেছি..!
গল্প : প্রাণাত্যয় (২য় পর্ব)
কপালী (পর্ব-৪)
একবিংশ শতাব্দীর এক হতাশা
গল্প : প্রাণাত্যয় (১ম পর্ব)
মানবতার বাজার (পর্ব ১)
আবেগ

আজকের সর্বশেষ সব খবর