দিনরাত নিউজ : বাংলাদেশের বলিং নৈপুণ্যে ভারত আটকে গেল ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৪৮ রানে। প্রথমবারের মতো ভারতে দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ খেলতে এসে প্রথম ম্যাচেই টার্গেটটা বড় হতে দেয়নি বাংলাদেশ। জিততে ১২০ বলে চাই ১৪৯ রান। সমীকরণ জটিল কিছু নয়, ওভারে ৭.৪! জয়ের রঙিন স্বপ্ন এখন টাইগারদের চোখে!

ঝড়ের ইঙ্গিত শুরুটা হয়েছিল ভারতের। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের প্রথম বাউন্ডারি। শফিউল ইসলামকে পাত্তাই দিচ্ছিলেন না রোহিত শর্মা। কিন্তু আরেকটি বাউন্ডারি হাঁকাতেই ভারত অধিনায়ককে আটকে ফেলেন অভিজ্ঞ এই পেসার! ম্যাচের ষষ্ঠ বলেই ধরা দেয় সাফল্য। ইনসুইং করা বল সামাল দিতে পারেননি রোহিত। আম্পায়ার সাড়া দিলেও রিভিউ নেন এই ওপেনার। যদিও শেষ রক্ষা হয়নি।

অথচ দিনটা তারই হতে পারতো। মহেন্দ্র সিং ধোনিকে টপকে এদিন হয়েছিলেন ভারতের হয়ে সবচেয়ে (৯৯) বেশি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা ক্রিকেটার। এমন কী প্রথম ওভারে দুই বাউন্ডারিতে দেশের হয়ে ২০ ওভারের ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি রানেরও মালিক বনে গিয়েছিলেন রোহিত। বিরাট কোহলিকে টপকালেও ম্যাচটা তার হলো না।

ভারতীয় ইনিংসে পরের আঘাতটা হানেন আমিনুল ইসলাম। পাওয়ার প্লে শেষে বোলিংয়ে এসেই বাজিমাত এই লেগ স্পিনারের। ইনজুরি কাটিয়ে ফিরে উইকেট তুলে নেন প্রথম ওভারেই। সাজঘরের পথ দেখিয়ে দেন লোকেশ রাহুলকে। তার ডেলিভারিটি অফ স্ট্যাম্পের বাইরে দিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিল, ঠিক তখনই প্রলুব্ধ হন রাহুল। ব্যস, ব্যাটে-বলে ঠিকঠাক সংযোগ হলো না। মাহমুদউল্লাহর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন রাহুল (১৫)।

এরপর শ্রেয়াস আইয়ারকেও সাজঘরের পথ দেখিয়ে দেন তরুণ লেগি আমিনুল। শ্রেয়াসকেও (২২) ফাঁদে ফেলেন এই টাইগার বোলার। তার তুলে দেওয়া বল হাতে জমাতে ভুল করেননি অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা নাঈম শেখ।

এরপর বেশ লড়ে যাচ্ছিলেন শিখর ধাওয়ান। অবশ্য দিল্লির উইকেটে তেমন রানও ছিল না। বুঝে-শুনে এগিয়ে যাচ্ছিলেন এই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। কিন্তু ৪২ বলে ৪১ করে রান আউটে কাটা পড়েন তিনি। স্তব্ধ হয়ে যায় অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামের পূর্ণ গ্যালারি!

১৪.৪ ওভারে তিন অঙ্কের দেখা পায় ভারত। তারপর শেষদিকে ভারতের ইনিংসটাকে মেরামত করার চেষ্টা করেছিলেন রিশব পান্ত। সে চেষ্টায় তিনি যে সফল তা বলার সুযোগ নেই। ২৭ রান করা পান্তকে ফিরিয়ে দেন শফিউল।

এর আগে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টস ভাগ্য থাকল বাংলাদেশের পক্ষে। বায়ুদূষণের শঙ্কা উড়িয়ে মুদ্রা নিক্ষেপে জিতেই হাসিমুখে প্রথমে বোলিং নিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তার সেই সিদ্ধান্তটা এখন যৌক্তিক করে তোলার পালা ব্যাটসম্যানদের। যদিও শঙ্কা থাকছে, এর আগে ভারতের বিপক্ষে ৮ টি-টোয়েন্টি খেলে সবকটিতেই হার দেখেছে টাইগাররা। ১৪৯ রানের চ্যালেঞ্জে পারবে তো অতিথিরা?