দিনরাত প্রতিবেদক : হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা বিজয়া দশমী আজ মঙ্গলবার। আজ বাজছে বিদায়ের সুর। বাবার বাড়ি ছেড়ে দেবী আজ চলে যাবেন কৈলাসে স্বামীর গৃহে। দেবী এসেছিলেন ঘোড়ায় আজ আবার যাবেনও ঘোড়ায়। প্রতিটি পূজামণ্ডপে আজ বাজবে শুধু বিষাদের সুর।

এদিকে, আজ মা দুর্গার বিদায়। তাই গতকাল সোমবার শেষবারের মতো দেবীর আশীর্বাদ কামনায় নারী, পুরুষ, শিশু-কিশোর সব বয়সের ভক্ত নিবিষ্ট মনে প্রার্থনা করেন। প্রতিটি মণ্ডপেই কয়েক দফা করে পুষ্পাঞ্জলি দেয়া হয়। বিদায় বেলায়ও চলেছে ঢাক আর শঙ্খধ্বনি, টানা মন্ত্র পাঠ, উলুধ্বনি, অঞ্জলি, ঢাকের বাজনার সঙ্গে ছিল ধুনচি নৃত্য। সন্ধ্যায় আরতির পাশাপাশি মণ্ডপে মণ্ডপে অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোচনাও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এবার সারাদেশে ৩১ হাজার ৩৯৮ পূজামণ্ডপে দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যা গত বছরের চেয়ে ৪৮৩টি বেশি বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ। ঢাকা মহানগরীতে এবার পূজামণ্ডপের সংখ্যা ২৩৭। যা গত বছরের চেয়ে তিনটি বেশি।

এ বছর ঢাকা বিভাগে ৭ হাজার ২৭১, চট্টগ্রাম বিভাগে ৪ হাজার ৪৫৬, সিলেট বিভাগে ২ হাজার ৫৪৫, খুলনা বিভাগে ৪ হাজার ৯৩৬, রাজশাহী বিভাগে ৩ হাজার ৫১২, রংপুর বিভাগে ৫ হাজার ৩০৫, বরিশাল বিভাগে ১ হাজার ৭৪১ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ১ হাজার ৬৩২ মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

পূরাণ মতে, রাজা সুরথ প্রথম দেবী দুর্গার আরাধনা শুরু করেন। বসন্তে তিনি পূজার আয়োজন করায় দেবীর এ পূজাকে বাসন্তী পূজা বলা হয়। কিন্তু রাবণের হাত থেকে সীতাকে উদ্ধার করতে লংকা যাত্রার আগে শ্রী রামচন্দ্র দেবীর পূজার আয়োজন করেছিলেন শরৎকালের অমাবস্যা তিথিতে, যা শারদীয় দুর্গোৎসব নামে পরিচিত। দেবীর শরৎকালের পূজাকে এজন্যই হিন্দুমতে অকাল বোধনও বলা হয়।