হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার ইকরামে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। যে কোন সময় ভয়াবহ সংঘর্ষের আশঙ্কা করছেন স্থানীয় লোকজন। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ ওই জায়গায় সব ধরণের কার্যক্রম বন্ধ রাখতে নিষধে করলেও কোন কর্ণপাতই করছে না প্রভাবশালী পক্ষ। উল্টো মামলা করার কারণে নিরিহ পরিবারকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে তারা।

জানা যায়, একটি জায়গা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে ইকরাম গ্রামের মৃত নদীরাম দাসের ছেলে নগেন্দ্র চন্দ্র দাস ও একই গ্রামের শ্ররীষ দাসের ছেলে শ্রীধর দাস ও স্থানীয় মেম্বার লিটন দাস গংদের। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে একাধিক মামলা মোকদ্দমাও রয়েছে। নগেন্দ্র দাস নিরিহ হওয়ার কারণে শ্রীধর দাস ও মেম্বার লিটন দাস গংরা বিভিন্ন সময় তাদেরকে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। জোরপূর্বক বিরোধপূর্ণ ওই জায়গাটি দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে তারা। এ ব্যাপারে নগেন্দ্র দাস বাদি হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করলে পুলিশ মামলাটির তদন্ত করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রতিবেদন দাখিল করে। এসকই সাথে সবধরণের অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে ওই জায়গার উপর প্রশাসন অস্থায়ী একটি নিষেধাজ্ঞাও জারি করে।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিরোধপূর্ণ জায়গায় সব ধরণের কার্যক্রম পরিচালনায় নিষেধ জানায়। এ সময় আসামী পক্ষ সেখানে মাটি ভরাট ও ঘর নির্মাণ করতে চাইলে সেই কাজগুলোও বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশনা দেয় পুলিশ। কিন্তু শ্রীধর দাস ও স্থানীয় মেম্বার লিটন দাস গংরা প্রশাসনের সেই নিষেধাজ্ঞা অমাণ্য করে সেখানে ঘর নির্মাণ অব্যাহত রেখেছেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। যে কোন সময় রক্তক্ষয়ি ঘটনার শঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, ওই জায়গাটি নিয়ে মাঝে মধ্যেই দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। যে কোন দিন একটি রক্তপাতের ঘটনা ঘটতে পারে। তাই যে কোন ধরণের অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানিয়েছেন তারা।

এদিকে মামলার দাবির অভিযোগ, প্রতিনিয়ত তাদেরকে নানাভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে শ্রীধর দাস ও মেম্বার লিটন দাস গংরা। এমনকি তাদের বিভিন্ন স্থাপনা ভেঙে নতুন জায়গা দখলেরও হুমকি দিয়ে আসছে।