দিনরাত সেন্ট্রাল ডেস্ক : খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনে বিরোধিতা না করতে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা সরকারের প্রতি যে আহ্বান জানিয়েছেন, তা মানা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

শনিবার দুপুরে চট্টগ্রামের প্রথম সিনেপ্লেক্স সিলভার স্ক্রিন আয়োজিত ‘বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প এবং বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক সেমিনারে অংশ নেওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

খালেদা জিয়ার জামিন বিসয়ে এক প্রশ্নে হাছান মাহমুদ বলেন, “বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত হয়ে কারাগারে আছেন। এতিমখানার জন্য যে টাকা বাইরে থেকে এসেছে, এতিমখানা নির্মাণ না করে সে টাকা তিনি তার ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করেছেন। সে কারণে সমস্ত সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে আইনি প্রক্রিয়ায় তার শাস্তি হয়েছে।

“তিনি যখন জামিন চান, এ ধরনের মামলায় রাষ্ট্র যেখানে পক্ষ, রাষ্ট্রপক্ষের দায়িত্ব হচ্ছে জামিনের বিরোধিতা করা এবং সেটি যদি করা না হয় তাহলে তো সেখানে দুর্নীতির সাথে আপস করা হয়।”

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের এক সংবাদ সম্মেলন থেকে খালেদা জিয়ার কারামুক্তির পথ খুলতে আদালতে জামিন আবেদনের বিরোধিতা না করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, “বিএনপির পক্ষ থেকে যে দাবিটা করা হচ্ছে তা হল দুর্নীতির সাথে যেন রাষ্ট্রপক্ষ আপস করে। এটা তো করা সম্ভবপর নয়। শুধু এটুকু বলব খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি একেবারেই আদালতের এখতিয়ার। দুর্নীতির সাথে আপস বা তাদের আবদার রক্ষা করার সুযোগ নেই।”

আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, “রাষ্ট্রপক্ষ দুর্নীতির বিরোধিতা করলেও কিংবা দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত আসামি হলেও আদালত যে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে। নানাদিক বিবেচনায় নিতে পারেন। সেটি হচ্ছে আদালতের এখতিয়ার। আদালত কী করবে সেটা কিন্তু আমি বলতে পারব না।”

খালেদা জিয়ার জামিনের বিষয়ে বিএনপি নেতাদের একেক সময় একেক ধরনের বক্তব্যের সমালোচনা করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, “তারা কখনও বলেন আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্ত করা হবে। আবার বলেন যেন রাষ্ট্রপক্ষ বিরোধিতা না করে। আবার বলেন যে আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে।”