মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে গ্যাস নেয়াকে কেন্দ্র করে দুইপক্ষের সংঘর্ষে সিএনজি চালিত অটোরিকশার চালক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন এক মাইক্রোবাস চালক।

কমলগঞ্জের শমসেরনগর ইউনিয়নের বড়চেগ সিএনজি ফিলিং স্টেশনে বৃহস্পতিবার রাতে এই সংঘর্ষ হয় বলে জানান শমসেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশাররফ হোসেন।

নিহত অটোরিকশা চালকের নাম জলিল মিয়া। তার বাড়ি আলীনগর ইউনিয়নের আলীনগর বস্তি এলাকায়।

তার ভাই কাসেম মিয়া জানান, রাত পৌনে ১১টার দিকে ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শফি আহমদকে বহনকারী প্রাইভেট কার ওই ফিলিং স্টেশনে গ্যাস নিতে আসে। সেসময় আগে গ্যাস নেয়া নিয়ে ওই গাড়ির চালক হামিদ মিয়ার সঙ্গে জলিলের তর্কাতর্কি হয়। এর জেরে সংর্ঘষ শুরু হলে জলিলকে ছুরিকাঘাত করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে ওসি মোশাররফ জানান, অটোরিকশাটি গ্যাস নেয়ার জন্য প্রাইভেট কারের লাইনে ঢুকে পড়ে। এ নিয়েই শফি আহমদের গাড়ি চালকের সঙ্গে জলিলের তর্কাতর্কি হয়। এক পর্যায়ে তা হাতাহাতি পর্যন্ত গড়ায়।

খবর পেয়ে আশপাশের গ্রাম থেকে শফির সমর্থক ও অন্য অটোরিকশা চালকরা জড়ো হলে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। তখনই ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হন জলিল ও সেখানে থাকা একটি মাইক্রোবাসের চালক মনির মিয়া। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

আহত দুজনকে জেলা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় জলিলকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে নেয়ার সময় পথে মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে মন্তব্যের জন্য সাবেক চেয়ারম্যান শফির সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।