দিনরাত সেন্ট্রাল ডেস্ক : বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসের আগে সর্বোচ্চ বয়সসীমা বেঁধে দিয়েছে সংগঠনটি। ৫৫ বছরের বেশি বয়সী কেউ আর যুবলীগ করতে পারবেন না।

সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসকে সামনে রেখে রোববার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গণভবনে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যুবলীগ নেতাদের এ বৈঠকেই বয়সমীমা নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

যুবলীগের বয়সসীমা নিয়ে গঠনতন্ত্রে কোন বাধ্যবাধকতা ছিল না। তাই ৭১ বছর বয়সেও যুবলীগের নেতৃত্বে ছিলেন ওমর ফারুক চৌধুরী। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদসহ অনেকেরই বয়স ষাটোর্ধ্ব।

তথাকথিত এই যুবকদের নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা-সমালোচনা চলছিল। এমন প্রেক্ষাপটেই যুবলীগের সর্বোচ্চ বয়সসীমা নির্ধারণ করে দিয়েছেন সংগঠনের অভিভাবক আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

বৈঠকে যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তাকে সংগঠনের সব ধরনের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। সম্প্রতি ক্যাসিনো ও দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে তার সম্পৃক্তার প্রমাণ পাওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

এরপর গঠনতন্ত্র অনুসারে প্রেসিডিয়াম সদস্যদের মধ্য থেকে চয়ন ইসলামকে সপ্তম জাতীয় কংগ্রেসের প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক এবং বর্তমান সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদকে প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব নির্বাচন করা হয়।