লাখাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ পেশায় একজন আইনজীবী হলেও তিনি একজন সফল রাজনীতিবিধ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে ছাত্রজীবণ থেকে রাজনীতির পথচলা।

দীর্ঘ ৩৫ বছরের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে তিনি বর্তমানে লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সভাপতি। এরই ধারাবাহিকতায় ১৮ বছরের জনপ্রতিনিধিত্বের মাধ্যমে উপজেলার গরীব দুঃখী মানুষের আশ্রয়স্থল হয়ে উঠেছেন তিনি। জনপ্রতিনিধি হিসেবে উপজেলার সার্বিক উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যক্তি উদ্যোগে বিভিন্ন সামাজিক ও সৃজনশীল কর্মকান্ডের মাধ্যমে মানুষের মন জয় করে চলেছেন।

এমনই এক অনন্য আয়োজন পিতৃহারা ২টি অসহায় পরিবারের বর-কনের বিয়ের অনুষ্ঠান। বর উপজেলার করাব গ্রামের মৃত আফরোজ মিয়ার পুত্র মনির মিয়া (২৫), আর কনে পূর্ব বুল্লা গ্রামের মৃত অনু মিয়ার কন্যা জোনাকি(১৯) ।

বৃহস্পতিবার (১৮ফেব্রুয়ারি) উপজেলা চেয়ারম্যান তার নিজ বাড়ি লাখাই উপজেলার করাব গ্রামে আয়োজন করে তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান। জাঁকজমকপূর্ণ এ বিয়েতে উপজেলা চেয়ারম্যান এ নবদম্পতির জন্য প্রধান মন্ত্রীর বিশেষ তহবিল থেকে ৩ লক্ষ টাকা বরাদ্দে তৈরি করে দেন এক দৃষ্টিনন্দন বাড়ি। এছাড়াও বরের আর্থিক সচ্ছলতার জন্য তিনি ও তার সহধর্মিণী আয়েশা সিদ্দিকা ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে নতুন ইজিবাইক সহ ব্যবহার্য যাবতীয় আসবাবপত্র বিয়েতে উপঢৌকন হিসেবে দেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ এর সাথে আলাপকালে জানান, আমি আমার সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে ২টি অসহায় পরিবারের বর-কনের বিয়ের আয়োজন করেছি এবং আমি নিজে ও আমার সহধর্মিণী সার্বক্ষনিক পাশে থেকে বিয়ের কাজ সুসম্পন্ন করতে পেরে আত্মতৃপ্তি লাভ করছি।