মুন্সিগঞ্জে সালিশ বৈঠকে দুই পক্ষের সংঘর্ষে দুই তরুণ নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত পাঁচজন।

সদর উপজেলার উত্তর ইসলামপুর এলাকায় বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন, ওই এলাকার ২২ বছরের ইমন হোসেন ও ১৯ বছরের সাকিব হোসেন।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুবক্কর সিদ্দিক ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এলাকার এক স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করতেন সৌরভ নামের এক তরুণ। এ নিয়ে এলাকার মুরব্বিরা সালিশ বৈঠক বসান বুধবার রাতে। বৈঠকে ওই স্কুলছাত্রী ও তার পরিবারের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন আওলাদ হোসেন মিন্টু নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি ও তার লোকজন। আর সৌরভের সঙ্গে ছিলেন তার বাবা জামাল হোসেন ও তার লোকজন।

সালিশ চলাকালে মিন্টু ও জামালের মধ্যে তর্কাতর্কির এর পর্যায়ে দুই পক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায়। সে সময় আহত হন বেশ কয়েকজন।

তাদের মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে ইমনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

হাসপাতালটির জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ফেরদৌস জানান, বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে তিনজনকে হাসপাতালে আনা হয়। এদের মধ্যে ইমন নামে এক তরুণ মৃত ছিলেন। এ ছাড়া আরও কয়েকজন গুরুতর আহত হওয়ায় তাদের সরাসরি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ওসি আবুবক্কর সিদ্দিক জানান, ঢাকা মেডিক্যালে নেয়ার পথে সাকিব নামে আরেকজনের মৃত্যু হয়।

ইমন ও সাকিব মিন্টুর অনুসারী ছিলেন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।

ওসি বলেন, ঘটনার বিস্তারিত জানার কাজ চলছে। এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে আটকও করা হয়েছে। তবে তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করেননি তিনি।