সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলায় নোয়াগাঁও গ্রামে হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলার গ্রেফতার শহিদুল ইসলাম স্বাধীন মেম্বার (৫০) সংগঠনের কেউ নন বলে দাবি করেছে জেলা যুবলীগ।

শনিবার (২০ মার্চ) দুপুরে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের রমিজবিপণির জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করে এই দাবি জানান জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক খন্দকার মঞ্জুর আহমদ।

তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, ২০০৭ সালের পর থেকে দিরাই ও শাল্লায় যুবলীগের কোনো সাংগঠনিক কমিটি নেই। তাই যারা শহিদুল ইসলামকে যুবলীগের নেতা বলে প্রচার করছেন, সেটা সঠিক নয়। এটা মূল ঘটনাকে আড়াল করার ষড়যন্ত্র।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন- সংগঠনের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নুরুল ইসলাম বজলু, সবুজ কান্তি দাস, সীতেশ তালুকদার মঞ্জু প্রমুখ।

স্বাধীনকে গতকাল শুক্রবার রাতে মৌলভীবাজার জেলার কুলউড়া শহর থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

উল্লেখ্য, গত ১৭ মার্চ হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হককে নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়াকে কেন্দ্র করে শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের ৮৭টি সংখ্যালঘু বাড়িতে হামলা চালানো হয়। এসব বাড়ি থেকে টাকা, স্বর্ণালঙ্কার লুট হয়।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে হবিবপুর ইউপি চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ মজুমদার বকুল প্রথম মামলাটি করেন। এতে প্রধান আসামি করা হয় দিরাইয়ের তাড়ল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শহিদুল ইসলাম স্বাধীনকে। তিনি স্থানীয় ওয়ার্ড যুবলীগের সদস্য বলে জানান এলাকাবাসী।