দিনরাত সেন্ট্রাল ডেস্ক : পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, ‘স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি একসঙ্গে পালন করবে বাংলাদেশ ও ভারত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরে এ বিষয়ে আলোচনা হবে।’

বুধবার (২ অক্টোবর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ৩ অক্টোবর দিল্লি যাবেন এবং ৬ অক্টোবর ঢাকা ফিরে আসবেন। তিনি ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দর সঙ্গেও সাক্ষাৎ করবেন। এ সফরে অনেকগুলো সমঝোতা হবে, তবে সংখ্যা জানা নেই। ১০-১২ টা হবেই।’

পররাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, ‘এ সফরে সীমান্তে হত্যা নিয়ে এবং দুই দেশের মধ্যে আরও অবাধ যাতায়াত নিয়ে আলোচনা হবে। বাণিজ্য শুল্কমুক্ত, নৌ ও সমুদ্র পথে যোগাযোগ নিয়ে আলোচনা হবে। রেল, বিমান ও সড়কে যাতায়াত আরও সহজ করতে করণীয় নির্ধারণ হবে। গঙ্গা ও তিস্তার পানি বণ্টন, নৌ পরিবহনের পরিধি ও সংখ্যা আরও বাড়ানো আলোচনায় স্থান পাবে। সমুদ্র সহযোগিতা কীভাবে আরও বাড়বে তাও আলোচনার হবে।’

সীমান্ত হত্যা নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা হত্যা চাই না। আগে বিএসএফ গুলি করে মারত। এখন আমাদের লোকজন চুরি করতে গিয়ে মারা যাচ্ছেন। তবে এখন হাতে গোনা কয়েকজন মারা যাচ্ছেন। এটা উন্নতি করে জিরোর কোটায় আনতে হবে। ভারতের ভিসা নিয়ে এখন যেকোনো সীমান্ত দিয়ে যাতায়াত করতে পারবে।’

ভারতের নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আসামের এনআরসি তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়, সমস্যা হবে না বলে দেশটির তরফ থেকে বারবার বলা হয়েছে। তাদের সরকারি তরফে যা বলছে আমরা তাতে আস্থা রাখতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ও মিয়ানমার ভারতের বন্ধু। আমরা জাতিসংঘে বলেছি, সন্ত্রাস থাকলে সবার ক্ষতি হবে। উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হবে। আমরা শান্তির যে প্রস্তাব দিয়েছি তাতে সবাই একমত।’

প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে সিঙ্গাপুরের উপ-প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও বৈঠক করবেন বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।