আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের মূল্য অস্থিতিশীলতা থাকায় রমজানের আগেই দেশের বাজারে নতুন দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। গত মাসে একবার দাম বেঁধে দেয়ার পর আবারও দাম বাড়িয়ে নতুন মূল্য নির্ধারণ করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

সোমবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশকবিষয়ক জাতীয় কমিটির সভায় তেলের দাম পুনর্নির্ধারণের সিদ্ধান্ত হয়। সভা শেষে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক বাজার অনুযায়ী স্থানীয় মূল্য সমন্বয়ের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে জাতীয় কমিটি ভোজ্যতেলের এই দাম নির্ধারণ করেছে।

নতুন দামে খুচরা বাজারে খোলা সয়াবিন ১১৩ টাকা লিটারে বিক্রি হবে; যা আগে ১০৭ টাকা ছিল। বোতলজাত সয়াবিনের লিটার ১২৩ টাকার পরিবর্তে বিক্রি হবে ১২৭ টাকায়। ডিলার পর্যায়ে ১৩১ ও খুচরায় ১৩৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে; যা এক মাস আগে ছিল ডিলার পর্যায়ে ১২৭ ও খুচরা মূল্য ১৩৫ টাকা।

আর ৫ লিটারের বোতল মিলগেটে ৬২০ টাকা, ডিলার পর্যায়ে ৬৪০ টাকা ও খুচরা পর্যায়ে ৬৬০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে; যা আগে ছিল যথাক্রমে ৫৯০ টাকা, ৬১০ টাকা ও ৬৩০ টাকা।

এছাড়া প্রতি লিটার খোলা পামঅয়েলের দাম বেঁধে দেয়া হয়েছে মিলগেটে ১০৪ টাকা, ডিলার পর্যায়ে ১০৬ টাকা ও খুচরা ১০৯ টাকা।

আগে পামঅয়েলের দাম ছিল মিলগেটে ৯৫ টাকা। পরিবেশক পর্যায়ে ৯৮ ও খুচরা ১০৪ টাকা।

পরিশোধনকারী মিলগুলো তার ব্র্যান্ড অনুযায়ী এই সীমার মধ্যে যেকোনো মূল্য নির্ধারণ করে দিতে পারবে।

সম্প্রতি হঠাৎ করেই দেশে ভোজ্যতেলের দাম বাড়তে থাকে। গত মাসে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি তেলের দাম বেঁধে দেয়ার নির্দেশ দিলে তা একবার নির্ধারণ করে দেয় মন্ত্রণালয়।