আতঙ্ক যেন পিঁছু ছাড়ছেই না হবিগঞ্জ শহরবাসীর। এক আতঙ্কের পর অপর আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে শহরজুড়ে।

গেল কয়েকমাস আগে হুট করেই হবিগঞ্জ শহরে দেখা দেয় ‘কিশোর গ্যাং’ আতঙ্ক। এরপর সম্প্রতি শহরে প্রতিরাতেই একের পর এক চুরির ঘটনা ঘটতে থাকে। এবার প্রকাশ্য দিবালোকে শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাত করে ঘটেছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। এসব ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন শহরবাসী। স্থানীয়রা বলছেন, আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি ঘটেছে। যে কারণে সহসাই ঘটছে এমন অপরাধ কর্মকাণ্ড।

সাধারণ মানুষের দাবি, রাত ১২টার পর শহরে বের হওয়া যাবে না এমন অকার্যক নিয়ম বন্ধ করে অপরাধ দমনে পুলিশকে আরও দায়িত্বশীল হতে হবে। পাশাপাশি শহরের চিহ্নিত অপরাধিদের আইনের আওতায় আনার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে স্কুল থেকে বাসায় ফেরার পথে শহরের ঝিলপাড় এলাকায় জলি হালদার নামে এক শিক্ষিকাকে ছুরিকাঘাত করে স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইলসহ টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে যায় একদল দূর্বৃত্ব। এ সময় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে ওই শিক্ষিকা গুরুত্বর আহত হন। তার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার করে তাকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসা দেন।

ছিনতাইয়ের শিকার শিক্ষিকা জলি হালদার শহরের পুরানমুন্সেফী কোয়ার্টার এলাকার বিপ্লব রায়ের স্ত্রী ও স্টাফ কোয়ার্টার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা।

আহত শিক্ষিকার স্বামী বিপ্লব রায় জানান, এ ব্যাপারে থানায় মৌকিকভাবে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শ ও শিক্ষিকার জবানবন্দি নিয়েছে। পরবর্তীতে তারা অন্য সিদ্ধান্ত নেবেন বলেও জানান তিনি।

প্রকাশ্য দিবালোকে এমন ছিনতাইয়ের বিষয়টি শহরে ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। দাবি উঠে দ্রুত ছিনতাইকারী চক্রকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার। অন্যতায় আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।