দিনরাত প্রতিবেদক, হবিগঞ্জ : ঘুমের মধ্যেই স্ত্রীর গলা কেটে হত্যা করে ঘাতক স্বামী। হবিগঞ্জ লাখাই উপজেলার ভরপূর্নি গ্রামে মাহফুজা বেগমকে হত্যার জবানবন্দিতে এ তথ্য বের হয়ে এসেছে।

স্বামী মকসুদ আলী বুধবার বিকেলে হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুরে আলমের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন।

লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুল ইসলাম জানান, গ্রেফতারের পর মকসুদ আলী পুলিশের কাছে স্বীকারোক্তি দেন। তিনি দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিতে আগ্রহ দেখালে আদালতে হাজির করা হয়। পারিবারিক কলহের জেরে এ খুনের ঘটনা ঘটে। স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় জেল খেটে বের হওয়ার পর মকসুদ খুনের পরিকল্পনা করেন।

এর আগে সোমবার দিবাগত রাতে লাখাই উপজেলার বুল্লা ইউপিতে এ খুনের ঘটনা ঘটে। সেখানে ভরপূর্নি গ্রামের গৃহবধূ মাহফুজার গলাকাটা লাশ উদ্ধার হয়।

মাহফুজা গোয়াকারা গ্রামের ফীর ইসলামের মেয়ে। স্বামী মকসুদ ভরপূর্নি গ্রামের খেলু মিয়ার ছেলে। রাতে মাহফুজাকে গলাকেটে হত্যার পর মকসুদ বসতঘরের দরজা বন্ধ করে রেখেছিলেন। সেখানে তাদের দুই শিশু সন্তান ঘুমিয়ে ছিল। হত্যার ঘটনা আঁচ করতে পেরে প্রতিবেশীরা পুলিশে খবর দেন। পুলিশ লাশ উদ্ধারের সময় মকসুদকে গ্রেফতার করে।