হবিগঞ্জে পাওনা টাকা চাওয়ায় আহাম্মদ আলী স্বপন (২০) নামে এক সাংবাদিক পুত্রকে ছুরিকাঘাতে খুন করা হয়েছে। শনিবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে সদর উপজেলার তেতৈয়া গ্রামে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে তাকে।

এদিকে এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মাইনুল হাসান (২০) এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সে একই গ্রামের আব্দুল আলীমের পুত্র।

নিহত স্বপন শহরতলীর ভাদৈ গ্রামের সাপ্তাহি অপরাধ বিচিত্রার সাংবাদিক জমির আলীর ছেলে।

হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার (ওসি) মো. মাসুক আলী জানান, নিহত যুবক আহাম্মদ আলী স্বপনের মাইনুল ইসলামের কাছে ১ হাজার টাকা পাওনা ছিল। এরই প্রেক্ষিতে স্বপন বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পশ্চিম ভাদৈ সড়কে পাওনা টাকা নিয়ে তার সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে মাইনুল উত্তেজিত হয়ে তার সহযোগীদের নিয়ে স্বপনকে উপর্যপূরি ছুরিকাঘাত করে।

পরে তাকে তাৎক্ষণিক উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। পরে ময়না তদন্ত শেষে তার মরদেহ বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। রাত সাড়ে ৯টায় ভাদৈ এলাকায় প্রথম জানাজা ও তেতৈয়া গ্রামে ২য় জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

(ওসি) আরো জানান, ঘাতক মাইনুল ভাদৈ এলাকায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছে বলে প্রাথমিক ভাবে জানাজা গেছে। তাকে থানায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আজ শনিবার মাইনুলকে আদালতে প্রেরণ করা হবে।