হবিগঞ্জের বাহুবলে রাজু আহমেদ (২৫) নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার পরিবারের দাবি, পুলিশের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় কারণে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলার কটিয়াদি বাজার থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত রাজু আহমেদ সদর উপজেলার সুলতানশী গ্রামের দিদার আলীর ছেলে।

গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আল আমীন। তবে কি কারণে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়ে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি তিনি।

এ ব্যাপারে বাহুবল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, গ্রেপ্তারকৃত রাজু আহমেদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে পুলিশ প্রশাসনকে নিয়ে মানহানীকর বক্তব্য প্রদান করে। এছাড়া সে পুলিশের গাড়ি পুড়ানো মামলার আসামীও। যে কারণে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সহায়তায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

রাজুর ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডি ঘুরে দেখা যায় বাহুবলে পুলিশের ধাওয়ায় সিএনজি চালকের মৃত্যুর বিষয়টি নিয়ে দুটি স্ট্যাটাস দিয়েছে। যেখানে পুলিশের বিরুদ্ধে নানা মন্তব্য করেছে সে।

          প্রথম আলো অনলাইনের একটি লিংক শেয়ার দিয়ে ক্যাপশনে সে ফেসবুকে লিখেছে

‘ধিক্কার জানাই আইনের লোক নামে বেআইনি লোকদের,,,, মাত্র ২/৩ টাকার জন্য পুলিশ যেভাবে তাড়া করল,,,এই হত্যার দায় কার,,,,এই অসৎ অফিসারদের জন্য আর কত তরতাজা প্রাণ রাস্তায় পড়বে। ধিক্কার জানাই এই অসৎ অফিসারদের’।

গত মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে উঠার অপরাধে একটি সিএনজি অটোরিকশাকে ধাওয়া করে হাইওয়ে পুলিশের একটি টিম। এ সময় সিএনজি অটোরিকশাটি দ্রুতগতিতে পালাতে গেলে অপর একটি বাস চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই চালক নিহত হন। এ ঘটনয়ায় আহত হন আরও ৩ জন।

ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ জনতা প্রায় ৩ ঘন্টা ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। এ সময় পুলিশের একটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে প্রায় ৭শ’ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছে।