হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আতাউর রহমান সেলিম ১৩ হাজার ৩২২ ভোটে বিজয়ি হয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী বর্তমান মেয়র (আ’লীগ বিদ্রোহী) মিজানুর রহমান মিজান নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১০ হাজার ৯৯০ ভোট। তবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী বিএনপি প্রার্থী এনামুল হক সেলিমসহ বাকি ৪ মেয়র প্রার্থীই নিজেদের জামানত হারিয়েছেন।

রোববার রাত ৮টা ৪৪ মিনিটে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়র প্রার্থীদের এ ফলাফল ঘোষণা করেন।

ফলাফলে দেখা যায়, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদি দল (বিএনপি) মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপি’র যুগ্ম-আহবায়ক এনামুল হক সেলিম ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ২৪২ ভোট, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী আলহাজ্ব সামছুল হুদা পেয়েছেন ৮৭৮ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী বশিরুল আলম কাওছার মোবাইল ফোন প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৩৬ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট’র আইনজীবি গাজী পারভেজ হাসান জগ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৪৮ ভোট।

হবিগঞ্জ পৌরসভায় মোট ভোট পড়েছে ২৯ হাজার ৬টি। মোট কাস্টিং ভোটের ৮ ভাগের এক ভাগ না পাওয়ায় এই চার প্রার্থী জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

সকাল ৮ থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়। এবারের নির্বাচনে ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে ৩৯ ও ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১৭ জনসহ ৬২ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

হবিগঞ্জ পৌরসভায় ৫০ হাজার ৯০৩ জন ভোটার থাকলেও মোট ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ২৯ হাজার ৬ জন। এর মধ্যে বৈধ ভোটের সংখ্যা ২৮ হাজার ৯১৬টি এবং বাতিল ভোটের সংখ্যা ৯০টি। হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৫৬.৯৮ শতাংশ।

১৮৮১ সালে প্রতিষ্ঠিত ৯ দশমিক ৫ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের প্রথম শ্রেণির এ পৌরসভায় বসবাস করেন প্রায় লক্ষাধিক মানুষ।