মাত্র দশটি দেশ সব টিকার ৭৫ শতাংশ দখল করেছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস। দেশগুলোর প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ১৩০টি দেশ এখনো টিকার একটি ডোজও হাতে পায়নি।

জাতিসংঘের সেক্রেটারি কাউন্সিলের শীর্ষ পর্যায়ের একটি বৈঠকে বুধবার গুতেরেস এসব কথা জানান।

টিকা বণ্টনের এমন ঘটনাকে তিন ‘বন্যভাবে অসম এবং অনৈতিক’ বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেন, ‘কঠিন এই সময়ে বিশ্ববাসীর সামনে ভ্যাকসিন সমতাই সবচেয়ে বড় নৈতিক পরীক্ষা।’

সমানভাবে ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে জরুরিভাবে বৈশ্বিক টিকা সরবরাহ কর্মসূচি গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

জাতিসংঘের বৈঠকে অসমভাবে ভ্যাকসিন বণ্টনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ারও আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

করোনাকে বৈশ্বিক মহামারী ঘোষণার পরপর ভ্যাকসিন পেতে উঠেপড়ে লাগে কয়েকটি দেশ। যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পই অধিকাংশ ভ্যাকসিন নিজের দেশের জন্য অগ্রিম কিনে নেয়ার চেষ্টা করেন। এরপর ব্রিটেন, ইতালি, স্পেন, ব্রাজিলও একই ধরনের পদক্ষেপ নেয়।

এশিয়ায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন সরবরাহ করছে ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট। তাদের সঙ্গে আগেভাগে যোগাযোগ করায় ভ্যাকসিন পেয়েছে বাংলাদেশ। ইতিমধ্যে দেশের প্রায় ১৬ লাখ মানুষ ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

চলতি মাসে ভারত থেকে দ্বিতীয় চালান আসলে আরও বেশি মানুষের ভ্যাকসিন পাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে।